ভ্যাকসিন কার্যকর না হওয়ার যত কারন

ভ্যাকসিন নিয়ে যত কথা ভ্যাকসিনেশন

ভ্যাকসিন অকার্যকর হওয়ার কারণসমূহঃ

  • বাচ্চাদের মায়ের কাছ থেকে পাওয়া এন্টিবডির পরিমাণ নির্ধারণ না করে এবং বাচ্চার সার্বিক শারীরিক অবস্থার না জেনে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে না।
  • পরিবেশের ভাইরাসের স্ট্রেনের শহীদ তার বিরুদ্ধে প্রকৃত ভ্যাকসিন ভাইরাসের মিল না থাকলে ভ্যাকসিন কার্যকর হবে না।
  • পূর্বে থেকেই যদি মোরগ-মুরগি ওই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে।
  • ভ্যাকসিন সংরক্ষণ ব্যর্থতা সর্বক্ষেত্রে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ না করলে লাইভ অ্যাকশন এর জীবন ও মারা যাবে এবং মৃত বা জীবিত জীবাণুর এন্টিজেন এর গুনাগুন নষ্ট হয়ে যাবে ফলে ভ্যাকসিন কার্যকর হবে না।
  • খাবার পানিতে ভ্যাকসিন ব্যাবহারের ক্ষেত্রে পানিতে ব্লিচিং পাউডার বা যে কোন রাসায়নিক পদার্থ যেমন জীবাণুনাশক ঔষধ ব্যবহার করা।
  • নির্ধারিত মাত্রায় ভ্যাকসিন প্রয়োগ না করা যেমনঃ ১০০০ মাত্রার ডোজ  ১১০০/১২০০মুরগিতে প্রদান করা।  
  • যথাসময়ে ভ্যাকসিন মিশ্রিত পানি শেষ না করা নির্ধারিত সময় সর্বোচ্চ ২ ঘন্টা তবে গরমকালে ১ ঘন্টা। রোগাক্রান্ত বা অসুস্থ মুরগির ভ্যাকসিন প্রদান করা যেমনঃ মাইকোপ্লাজমোসিস,কক্সিডিওসিস,মারেক্স,এন্টারাইটিস,কৃমি সংক্রমণ ইত্যাদি।
  • আবহাওয়াজনিত যেকোনো ধরনের ধকল যেমন অতিরিক্ত গরম বা ঠান্ডা ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা কমে যাওয়া।
  • ভ্যাকসিন করার যন্ত্রপাতি পরিষ্কার এবং জীবাণুমুক্ত না করা।
  • ভ্যাকসিন করার যন্ত্রপাতি বা পানি বিতরণ ব্যবস্থা রাসায়নিক জীবাণুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করা।
  • খাদ্যে মাইক্রোটকজিনের উপস্থিতি। বিভিন্ন প্রকার রোগ দমনে নিম্নমানের ঔষধ ব্যবহার করা।
  • সঠিক পদ্ধতিতে বা রুটে ভ্যাকসিন প্রয়োগে ব্যর্থতা।
  • সর্বোপরি মুরগির খাবারে আদর্শ পুষ্টিমানের অভাব শরীরে প্রোটিন ভিটামিন মিনারেল প্রভৃতির অভাব থাকলে ভালো এন্টিবডি তৈরি হবে না।
  • এলাকার রোগ-জীবাণুর তীব্রতা অনুযায়ী সঠিক ভ্যাকসিন তালিকা সাজাতে ব্যর্থ হলে।

Facebook Comments
Tagged

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *