এই শীতে খামারিদের চরম বন্ধু সিরামিক এবং ইনফ্রারেড হিট বাল্ব

এই হাড়কাপা শীতে আপনার খামারকে চাঙ্গা রাখতে ব্যবহার করুন সিরামিক হিট বাল্ব এবং ইনফ্রারেড হিট বাল্ব পোল্ট্রি ফার্মিং-এ লাইটিং এবং তাপমাত্রার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আলোর সঠিক ব্যবস্থাপনার ফলে একদিকে যেমন অনেক সমস্যা থেকে নিরাপদ থাকা যায় অন্যদিকে খামারীর কাংখিত উৎপাদন নিশ্চিত হয়। আর এসব বিবেচনায় রেখে “Vet Shop Bangladesh” নিয়ে এলো সিরামিক এবং ইনফ্রারেড হিট […]

Continue Reading

একটি হাঁসের খামারের দৈনিক কাজের রুটিন

দৈনিক কার্যাবলিঃযে কোনাে ধরনের খামারই হােক না কেন তার ব্যবস্থাপনা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। প্রকৃতপক্ষে খামার ব্যবস্থাপনার উপরই খামারের লাভ-লােকসান এমনকি খামারের ভবিষ্যৎ সম্প্রসারণ নির্ভর করে। ক) সকাল ৭-৯ টাঃ জীবাণুমুক্ত অবস্থায় শেডে প্রবেশ করতে হবে এবং হাঁস-মুরগির সার্বিক অবস্থা ও আচরণ পরীক্ষা করতে হবে। মৃত বাচ্চা/বাড়ন্ত বাচ্চামুিরগি থাকলে তৎক্ষণাৎ অপসারণ করতে হবে। পানির পাত্র খাবার […]

Continue Reading

হাঁসের খামার করতে হলে বাচ্চার আগে ভ্যাকসিন সংগ্রহ কেন জরুরি

যেকোন খামার তৈরিতে প্রথম খরচটা কোথায় করবেন? বাচ্চা কিনতে ? ঘর বানাতে ? খাদ্য কিনতে? ৩টাই বেঠিক উত্তর। আমার মতে ভ্যাক্সিন হওয়া উচিত প্রথম খরচের জায়গা। কারণ হাঁস বা মুরগীর খামার ভ্যাক্সিন দেয়াটা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্র্যাকটিস। মূলত যেকোন খামার গড়ার সময় সবার আগে ভ্যাক্সিন কিনে রাখতে হবে। কারন বাংলাদেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে টাকা থাকলেও ভ্যাক্সিন পাওয়া […]

Continue Reading

হাঁসের খাদ্য তৈরি (বাচ্চা হাঁস, বাড়ন্ত হাঁস ও ডিম পাড়া হাঁস)

গ্রামাঞ্চলে হাঁস অর্ধ আবব্ধ পদ্ধতিতে পালন করা হয়। পুকুর, খাল-বিল, নদী ইত্যাদিতে হাঁস চড়ে বেড়ায় এবং এখান থেকেই খাদ্য সংগ্রহ করে। অনেক খামারীগণ হাঁসকে শুধু ধানের কুড়া, চাল, গম এসব খেতে দেয়। সাধারনত বর্ষা মৌসুমে সম্পুরক খাদ্য হিসেবে বাচ্চা প্রতি ৫০ গ্রাম এবং বয়স্ক গুলোকে ৬০ গ্রাম হারে সুষম খাদ্য দিতে হবে। তবে শুস্ক মৌসুমে […]

Continue Reading

চারিদিকে বইছে হাঁস পালনের হিড়িকঃজেনে বুঝে শুরু করুন

ইদানিং বোধহয় আমাদের দেশে হাঁস পালনের একটি জোয়ার বইছে। কবুতর, শেয়ারবাজার টার্কি, ছাগল পালন ইত্যাদির পর এখন অনলাইন অফলাইনে, প্রায় সবজায়গাতেই হাঁসের খামার নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। তবে এখানেও শিক্ষিত ও অশিক্ষিত নির্বিশেষে সে একই অবস্থা; অনভিজ্ঞতা। অন্যকে দেখে তাকে কপি করতে গিয়ে এটা করা হচ্ছে যার ভবিষ্যত খুব ভালো দেখছি না। হয়তো এদের ৮০% ঝড়ে […]

Continue Reading

নতুন হাঁস খামারিদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ – ফয়জুল ইসলাম মানিক

যারা হাঁস খামার গড়তে চান তারা এই লেখাটা পড়ুন। হাঁস খামারে লাভবান হতে গেলে কয়েকটা বিষয় টার্গেট নিয়ে খামার গড়তে হবে ১) অপ্রচলিত খাদ্য যেমন শামুক, ঝিনুক, মাছ-মুরগির উপজাত, শ্যাওলা ইত্যাদি খাবার রেশনে ব্যবহার করতে হবে অথবা ঘের-খাল-বিল হাওড়ে হাঁসকে চড়ানোর সুযোগ দিতে হবে যাতে ৪০% খাবার সে বাইরে খেয়ে আসে। ২) মানুষকে কচি হাঁস […]

Continue Reading

শামুক চাষ হতে পারে হাঁসের খামারিদের জন্য সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত

হাঁসের খামারিদেরকে আমি সব সময় বলি শামুকের চাষ করতে এবং তাদের কাছে জানতে চাই, পুকুর আছে কিনা অথবা ডোবা নালা বা হাঁস চড়ার জন্য জলাভূমি আছে কিনা। প্রাকৃতিক ভাবে যদি হাঁসের খাদ্য সরবরাহ করা না যায় তবে খামারে লাভের অংশ টা কম হয়।যদি আপনার ডোবা নালা পুকুর বা পরিত্যক্ত জলাভূমি থাকে তবে আপনি শামুক চাষ […]

Continue Reading

হাঁসের ডাক প্লেগ রোগের সরকারি ভ্যাকসিন গুলানোর নিয়ম,ডোজ,মাত্রা,দেয়ার পদ্ধতি,সংরক্ষণ ও দাম সহ বিস্তারিত

ডাক প্লেগ আমাদের দেশের হাঁসের একটি ভাইরাসজনিত মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এ রোগে আক্রান্ত হাঁসের ছানা ৩-৪ দিনের মধ্যে মারা যায়। সবুজ বর্ণের পাতলা পায়খানা, চোখে পিছুটি লেগে থাকা, খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাটা এবং মৃত্যুর পর পুরুষ হাঁসের পুরুষাংগ বাহির হয়ে আসা এ রোগের প্রধান বৈশিষ্ট্য। এ রোগে আক্রান্ত হাঁসের মৃত্যুর হার ১০০%। মাষ্টার সীড : দেশীয় (Local) […]

Continue Reading

হাঁসের ডাক প্লেগ রোগের কারণ লক্ষণ ও প্রতিকার

ডাক প্লেগ হাঁসের একটি মারাত্মক সংক্রামক রোগ। এ রোগকে ডাক ভাইরাল এন্টারাইটিস বলা হয়। ১৯২৩ সালে বাউডেট নামক জনৈক বিজ্ঞানী নেদারল্যান্ডে হাঁসের মরক হিসেবে রোগটি প্রথম সনাক্ত করেন। বর্তমানে পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই হাঁসের প্লেগ রোগ দেখা যায়। প্রাকৃতিক নিয়মেই সব বয়সী গৃহপালিত ও বন্যহাঁস, রাজহংসী এই ভাইরাসের প্রতি সংবেদনশীল। আক্রান্ত পাখির সংস্পর্শে, দূষিত খাদ্যদ্রব্য […]

Continue Reading

বেইজিং জাতের হাঁস পালন পদ্ধতি

বেইজিং মূলত চীনের রাজধানী যার নামানুসারে এই হাঁসের জাতের নাম বেইজিং রাখা হয়েছে। আমাদের দেশের আবহাওয়ায় এই জাতের হাঁস পালন করা সম্ভব। বেইজিং জাতের হাঁস পালনের জন্য আমাদের দেশের পরিবেশ একদম অনুকূল। সুবিধাদেশী হাঁসের তুলনায় এর গোশত বেশি সুস্বাদু। কোলস্টেরলের পরিমাণ কম। তিন মাসে হাঁসগুলোর গড় ওজন প্রায় পাঁচ কেজি পর্যন্ত হয়। খাবার বেশ কম […]

Continue Reading